Global Startup to Entrepreneur Network (G-SEN) – 2020 এর ৫টি বিজয়ী টিম নিয়ে কোরিয়ার সম্মানীয় রাষ্ট্রদূত লি জাং-কেউন এর সাথে শফিউল তপন এবং তানিয়া চৌধুরী
Global Startup to Entrepreneur Network (G-SEN) – 2020 এর ৫টি বিজয়ী টিম নিয়ে কোরিয়ার সম্মানীয় রাষ্ট্রদূত লি জাং-কেউন এর সাথে শফিউল তপন এবং তানিয়া চৌধুরী

গ্লোবাল স্টাটআপ টু এন্ট্রাপ্রেনিউর নেটওয়ার্ক (জি-সেন) – ২০২০ এর ৫টি বিজয়ী দল এর কোরিয়া যাত্রা আজ

গ্লোবাল স্টাটআপ টু এন্ট্রাপ্রেনিউর নেটওয়ার্ক (জি-সেন) – ২০২০ একটি গ্লোবাল প্রোগ্রাম যা কোরিয়ার মিনিস্ট্রি অফ জাস্টিস এর অনুমতিক্রমে কোরিয়া প্রোডাক্টিভিটি সেন্টার (KPC) এবং কোরিয়া ইনোভেশন প্রোমোশন এসোসিয়েশন (KIPA) কোরিয়াতে বাংলাদেশ থেকে বিজয়ী ৫টি ব্যাচ এর ১০ জন কো-ফাউন্ডারকে ৬ মাস ব্যাপী বাংলাদেশ মার্কেট কে সামনে রেখে প্রশিক্ষণ এর মাধ্যমে তাদের দক্ষতা বাড়াতে সহায়তা করবে। এছাড়াও আন্তর্জাতিক পেটেন্ট, ডিজাইন, কপিরাইট, ট্রেডমার্ক অধিকার প্রাপ্তিতে তাদের সহায়তা করা হবে। বাংলাদেশের তরুণ স্টাটআপরা যাতে করে দেশে এসে সরাসরি ব্যবসা শুরু করতে পারে তার জন্য তাদের প্রথম প্রোডাক্ট এর ওয়ার্কিং প্রোটোটাইপ তৈরিতেও কোরিয়া সর্ব প্রকার সহায়তা দিবে।
কিন্তু এই জি-সেন – ২০২০ যাদের হাত ধরে বাংলাদেশে এসেছে সেই তরুণ স্টাটআপ এবং প্রকৌশলী দম্পতি শফিউল তপন এবং তানিয়া চৌধুরী, বাংলাদেশের এর শুরু টা এত সহজ ছিল না বলে জানান।

এই তরুণ স্টাটআপ দম্পতির কোরিয়া যাত্রা শুরু ২০১৭ সালে কে-স্টাটআপ গ্র্যান্ড চ্যালেঞ্জ (ইনটুকোরিয়া) K-Startup Grand Challenge (In2Korea) প্রোগ্রাম এর মাধ্যমে। তারা বিশ্বের উন্নত দেশের স্টাটআপদের সাথে কম্পিটিশন এর দ্বারা সিলেক্ট হয়ে ২০১৭ সালে কোরিয়ায় যায় এবং Ministry of Science and ICT, Korea ও The National IT Industry Promotion Agency (NIPA), Korea এর সাহায্যে বাংলাদেশ থেকে প্রথম কোন আন্তর্জাতিক স্টাটআপ হিসাবে ৯ মাস ব্যাপী প্রোগ্রাম সফল ভাবে শেষ করে কোরিয়াতে তাদের কোম্পানি তালহাটেনিং এলএলসি (TalhaTraining LLC) প্রতিষ্টা করে।

তালহাটেনিং এলএলসি (TalhaTraining LLC), কোরিয়া প্রোডাক্টিভিটি সেন্টার (KPC) এর আন্তর্জাতিক ইনোভেশন পার্টনার হিসাবে কোরিয়াতে কাজ করছে, যার এশিয়ার প্রধান হচ্ছেন তালহাটেনিং এলএলসি এর এমডি এবং সিইও শফিউল তপন। একই সাথে তানিয়া চৌধুরী কাজ করছেন আন্তর্জাতিক ইনোভেশন কনসালটেন্ট হিসাবে, জি-সেন, কোরিয়া প্রোডাক্টিভিটি সেন্টারে।

এই দম্পতি যখন জি-সেন প্রোজেক্ট এ কাজ শুরু করে তখন তারা চিন্তা করে, অন্যান্য দেশের সাথে যখন কাজ করছি তখন বাংলাদেশ কেন নয়, বাংলাদেশের তরুণ উদ্যোক্তারা তো আরও অনেক সমস্যার সমাধান করে সামনে এগোয়।

এই চিন্তা ধারা থেকেই তারা, মিনিস্ট্রি অফ জাস্টিস কোরিয়া এর সম্মতি ক্রমে, কোরিয়া প্রোডাক্টিভিটি সেন্টার (KPC) এবং কোরিয়া ইনোভেশন প্রোমোশন এসোসিয়েশন (KIPA) এবং আইসিটি মিনিস্ট্রি, বাংলাদেশ এর মধ্য MoU সাক্ষর করায় ২০১৯ সালের ২৭ শে নভেম্বর এবং চুক্তি সাক্ষর করায় ২০২০ সালের ২৪ শে নভেম্বর। বাংলাদেশে ফিস এক্সপার্ট লিমিটেড (Fish Expert Limited) G-SEN এর সিলেকশন পার্টনার হিসাবে কাজ করছে।

তারই ফল সরূপ দীর্ঘ ২ বছর এর চেষ্টায় আজ, তাদেরই হাত ধরে গ্লোবাল স্টাটআপ টু এন্ট্রাপ্রেনিউর নেটওয়ার্ক (জি-সেন) – ২০২০ এর প্রথম ব্যাচ এর ৫টি বিজয়ী দল কোরিয়ায় যাত্রা শুরু করছে।

কৃষি উন্নয়ন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব এবং চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ও বার্তা প্রধান জনাব শাইখ সিরাজ এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহ্মেদ পলক এই ৫ টি বিজয়ী দলকে, শফিউল এবং তানিয়া দম্পতির মত দেশের পতাকাকে উজ্জ্বল ভাবে বিশ্বের সামনে তুলে ধরার পরামর্শ দেন।

আমাদের সবার শুভ কামনা এবং দোয়া থাকল এই তরুণ ৫টি বিজয়ী স্টাটআপ দল এর জন্য। একই সাথে শফিউল এবং তানিয়া দম্পতির জন্য, যারা বিদেশ গিয়েও দেশের কথা সবার আগে চিন্তা করে। এই তরুণরাই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে এবং দেশের পতাকাকে উজ্জ্বল ভাবে বিশ্বের সামনে তুলে ধরবে।

জি-সেন – ২০২০ এর বিজয়ী ৫টি ব্যাচ হল
১. কৃষিয়ান – কৃষি ভিত্তিক ইনোভেশন
২.চার ছক্কা লিমিটেড – অগমেন্টেড রিয়েলিটি (এআর) বেইজড এডুকেশন
৩. এএনটিটি রোবোটিক্স লিমিটেড – রোবোটিক্স প্রোগ্রামিং বেইজড এডুকেশন
৪. রক্ষী লিমিটেড – বিল্ডিং সিকুরিটি
৫.ছবির বাক্স – ছবি বেচা-কেনার মার্কেট প্লেস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*