বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বাংলাদেশ ব্যাংক শাখার উদ্যোগে প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

বিডিনিউজপ্রতিদিনঃ বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বাংলাদেশ ব্যাংক শাখার উদ্যোগে কুষ্টিয়া শহরের ৫ রাস্তার মোড়ে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙচুর ও ঢাকায় ধোলাইপাড়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণের বাধা দেওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ আজ সকালে মতিঝিল শাপলা চত্বরের সামনে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি মোঃ নেছার আহাম্মদ ভূঞা’র সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এস.এম দেলোয়ার হোসাইন এর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ পরিচালনা কমিটির সদস্য ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যাল এর ডেপুটি রেজিষ্টার ডা. শেখ আব্দুল্লাহ আল-মামুন, বিশিষ্ট কবি ও ছড়াকার, বঙ্গবন্ধু পরিষদ পরিচালনা কমিটির সদস্য আব্দুল মতিন ভূঁইয়া ও এস.এম লুৎফর রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংক এর জি.এম ওবায়দুল হক, নির্বাহী পরিচালক, আওলাদ হোসেন চৌধুরী, বাংলাদেশ ব্যাংক বঙ্গবন্ধু পরিষদ-যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক- মোহাম্মদ হোসেন, বাংলাদেশ ব্যাংক ইমপ্লয়ীজ ইউনিয়ন এর কার্যকরী সভাপতি- মোঃ লুৎফর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক, মোঃ এনামূল হক, বঙ্গমাতা পরিষদ, বাংলাদেশ ব্যাংক সভাপতি, আনোয়ার হোসেন আকন্দ, বাংলাদেশ ব্যাংক প্রজন্ম কমান্ড-সাধারণ সম্পাদক- মোঃ জুলহাস মিয়া, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কমা- বাংলাদেশ ব্যাংক-যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, মোঃ তৌফিকুর রহমান, বেসিক ব্যাংক বঙ্গবন্ধু পরিষদ সভাপতি, ড. শংকর তালুকদার, বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর কেন্দ্র-সভাপতি, মোঃ মুসফিকুর রহমান মিন্টু, বঙ্গবন্ধু পরিষদ প্রেস-উইং এর দায়িত্বপ্রাপ্ত আনন্দ কুমার সেন সহ বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বাংলাদেশ ব্যাংক শাখা নেতৃবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা. শেখ আব্দুল্লাহ আল-মামুন বলেন, বঙ্গবন্ধু চিরজ্ঞীব। তাঁর মুত্যু নেই। চিরদিন তিনি বাঙালির অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবেন। যারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর করে ও নির্মাণে বাধাদেয়, তারা দেশ ও জাতির দুশমন। তাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না। তিনি বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর ও নির্মাণে বাধা দেওয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং দোষীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আব্দুল মতিন ভূঁইয়া বলেন,  বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক ও অভিন্ন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব এদেশ স্বাধীন হয়েছে। বঙ্গবন্ধু একটি শোষণ, বৈষম্যহীন, সমতাভিত্তিক রাষ্ট্র গড়তে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর মর্মান্তিক মৃত্যুর কারণে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়নি। আশার বিষয় তাঁর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ ও বিচক্ষণ নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছে। বাংলাদেশের উন্নতি চায় না, সেই স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি ও বিএনপি জামায়াত জোট ও কিছু উগ্র-সাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক দল ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ধর্মীয় বিশংঙ্খলা সৃষ্টির মাধ্যমে তাদের মৌলবাদী শাসন কায়েম করতে চায়। তাদের সেই আশা একজন মুক্তিযোদ্ধা বেঁচে থাকতেও সফল হবে না। এস.এম লুৎফর রহমান বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম, এখানে জঙ্গী ও সন্ত্রাসের কোন স্থান নেই। বাংলাদে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। ধর্মের ভিত্তিতে রাষ্ট্র চলবে না। সবাই যারযার ধর্ম পালন করবে। ভাস্কর্য ও মূর্তিপূজা এক জিনিস নয়। যারা বঙ্গবন্ধুকে অশ্রদ্ধা করে তাদের বিষ দাঁত ভেঙ্গে দিতে হবে। অনুষ্ঠনে  সংহতি প্রকাশ করেন বঙ্গমাতা পরিষদ, বাংলাদেশ ব্যাংক শাখা, বাংলাদেশ ব্যাংক ইমপ্লয়ীজ ইউনিয়ন, স্বাধীনতা ব্যাংকার্স এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ব্যাংক প্রজন্ম কমান্ড, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান প্রজন্ম কমান্ড প্রমুখ। এছাড়াও বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মরত উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। সারা দেশে বাংলাদেশ ব্যাংকের ১১টি শাখায় একই সময়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করা হয়।

মোঃ নেছার আহাম্মদ ভূঞা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*