দক্ষিণ কোরিয়াতে এ বছর ১৪৪১ হিজরি এর সাদকাতুল ফিতর এর হার

বিডিনিউজপ্রতিদিন: সদকাতুল ফিতর, এই শব্দটি আরবি। এর বাংলা অর্থ সকালের নাস্তা বা রোযার পরে আমরা যে ইফতারি করে থাকি। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) প্রত্যেক (যাদের উপর যাকাত ওয়াজিব এবং যাদের নেসাব পরিমাণ অর্থ বা মালামাল রয়েছে) স্বাধীন, দাস, নারী-পুরুষ, ছোট-বড় সকল মুসলমানের ওপর ফিতরা আদায় করাকে ওয়াজিব করেছেন এবং এই ফিতরা ঈদের নামাজের পূর্বেই আদায় করতে হবে।

দক্ষিণ কোরিয়াতে এ বছর ১৪৪১ হিজরি এর সাদকাতুল ফিতর এর হার নিম্নরূপ।

১) উচ্চ মানের লাল আটা বা গম হিসেবে = ৪,৯৫০ উয়ন
৩০০০x১.৬৫০ = ৪,৯৫০
(১ কেজি ৬৫০ গ্রাম হিসেবে)

২) যব হিসেবে = ৭,২৬০ উয়ন।
২৫০০ x ৩.৩০০= ৭,২৬০
(৩ কেজি ৩০০ গ্রাম হিসেবে)

৩) খেজুরের হিসেবে = ৩৬,৩০০
১১০০০ x ৩.৩০০= ৩৬,৩০০
(৩ কেজি ৩০০ গ্রাম হিসেবে)

৪) কিসমিস হিসেবে = ৪৯,৫০০
১৫,০০০ x ৩.৩০০= ৪৯,৫০০
(৩ কেজি ৩০০ গ্রাম হিসেবে)

৫) পনির হিসেবে = ৫২,৮০০
১৬,০০০ x ৩.৩০০= ৫২,৮০০
(৩ কেজি ৩০০ গ্রাম হিসেবে)

উল্লেখ্য যে, KMF (Korean Muslim Federation) দক্ষিণ কোরিয়াতে এ বছরের ফিতরা সাধারণভাবে সর্বনিম্ন ৭০০০ উয়ন হিসেবে ধার্য করেছে।

বিশেষ দ্রষ্টব্য :
মাসয়ালা অনুযায়ী, প্রত্যেককে তার এলাকার নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী ফিতরা আদায় করতে হবে। সেক্ষেত্রে প্রবাসীদেরকেও নিজ নিজ অবস্থানের জায়গা থেকে নির্ধারিত খাদ্য বা সমপরিমাণ মূল্য আদায় করতে হবে।
(বাংলাদেশে রাজশাহীর সর্বনিম্ন ফিতরা ৫৫ টাকা এবং ঢাকার সর্বনিম্ন ফিতরা ৭০ টাকা ধার্য করা হয়েছে)

এখানে যে মূল্য তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে, তা আনসান এবং ফারান এলাকার হালাল ফুডের সাথে সামঞ্জস্য করে মধ্যম মানের খাদ্যদ্রব্যের মূল্য লেখা হয়েছে। আপনি ইচ্ছা করলে উচ্চমানের খাদ্যদ্রব্যের মূল্য নির্ধারণ করে ফিতরা আদায় করতে পারেন।

সুতরাং, প্রত্যেককে তার নিজ নিজ তাওফীক অনুযায়ী ফিতরা আদায় করার জন্য বিনীত অনুরোধ রইলো।

লেখক: খাজা মামুন, দক্ষিণ কোরিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*