ড্রাইভিং লাইসেন্সের দরপত্র বাতিল

দরপত্রের দলিলে মিথ্যা তথ্য দেয়ায় স্মার্টকার্ড মোটর ড্রাইভিং লাইসেন্স সংগ্রহের একটি ক্রয় প্রস্তাব বাতিল করেছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। পাশাপাশি ১১ হাজার ৮১৭ কোটি ১২ লাখ ৮৬ হাজার টাকার চারটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।

বুধবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে নতুন বছরের প্রথম বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত হয়েছে। বৈঠকে কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, দেশের কৃষি খাতের চাহিদা মেটাতে আন্তর্জাতিক দরপত্রের বিপরীতে ডিএপি ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেড (ডিএপিএফসিএল) এর জন্য ৩০,০০০ মেট্রিক টন (+১০%) ফসফরিক এসিড আমদানির অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ৮৭ কোটি ১২ লাখ ৪৮ হাজার ২৮৫ টাকা।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের (বিসিআইসি) অধীনস্ত ডিএপি ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেড (ডিএপিএফসিএল) ডিএপি সার উৎপাদনে প্রধান কাঁচামাল ফসফরিক এসিড বিদেশ থেকে আমদানি করে থাকে। ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের জন্য ৩০,০০০ মেট্রিকটন (+১০%) ফসফরিক ৩টি লটে আমদানির জন্য আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র আহবান করা হলে ৪টি দরপত্র জমা পড়ে। তার মধ্য থেকে টিইসি কর্তৃক সুপারিশকৃত সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠান মেসার্স উইলসন ইন্টারন্যাশনাল ট্রেডিং প্রাইভেট লিমিটেড সিঙ্গাপুর (লোকাল এজেন্ট: মেসার্স এসপারেনজা কানেকশন, ঢাকা) উল্লেখিত ফসফরিক এসিড সরবরাহ করবে।

আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের ‘শতভাগ পল্লী বিদ্যুতায়নের জন্য বিতরণ নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ (ঢাকা, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগ)’ শীর্ষক প্রকল্পের একটি প্যাকেজের তিনটি ২৬,৭৪০ কিলোমিটার কন্ডাক্টর, এসিএসআর ও বেয়ার ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ১৫১ কোটি ৯ লাখ ৮৭ হাজার ৬৮০ টাকা। বিআরবি ক্যাবল এসব পণ্য সরবরাহ করবে।

তিনি বলেন, ২০২০ পঞ্জিকাবর্ষে ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেডে প্রক্রিয়াকরণের জন্য আবুধাবী ন্যাশনাল ওয়েল কোম্পানি (এডিএনওসি) ও সৌদি আরব ওয়েল কোম্পানি (সৌদি আরামকো) থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল (মারবান ও এরাবিয়ান লাইট ক্রুড-এএলসি) আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। এজন্য ব্যয় হবে ৬৫৭৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

এছাড়া বৈঠকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড (ইআরএল)-এ ২০২০ পঞ্জিকাবর্ষে প্রক্রিয়াকরণের জন্য প্রতি বছরের চুক্তি অনুযায়ী আবুধাবীর এডনক থেকে এবং সৌদি আরবের সৌদি আরামকো থেকে ১৪ লাখ অপরিশোধিত জ্বালানি তেল (ক্রুড অয়েল) আমদানির পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। বিপিসির প্রস্তাব অনুযায়ী ২০২০ সালে জিটুজি ভিত্তিতে সৌদি আরামকো থেকে সাত লাখ মেট্রিক টন এএলসি ৩৭৬ দশমিক ২০১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ বাংলদেশি মুদ্রাায় ৩১৯২ কোটি ৭ লাখ টাকা এবং আবুধাবীর এডনক থেকে ৭ লাখ মেট্রিক টন মারবান ৩৯৯ দশমিক ১০৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩,৩৮৬ কোটি ৪৩ কোটি লাখ টাকা। সর্বমোট ৭৭৫ দশমিক ৩০৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ বাংলাদেশি মুদ্রায় ৬৫৭৮ কোটি ৫০ লাখ কোটি টাকা ব্যয় হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ২০২০ সালের জানুয়ারি-জুন সময়ের জন্য আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র প্রক্রিয়ার ৫ দশমিক ৬৬৯ থেকে ৬ দশমিক ৫৬৪ মিলিয়ন ব্যারেল (৭,৬০,০০০ থেকে  ৮,৮০,০০০ মেট্রিক টন) গ্যাস অয়েল (ডিজেল) ০.০৫% সালফার, ০.৮৮০ মিলিয়ন ব্যারেল (১,১০,০০০ মেট্রিক টন) জেট এ-১, ৪০,০০০ মেট্রিক টন ফার্নেস অয়েল ১৮০ সিএসটি এবং ০.২৫৮ মিলিয়ন ব্যারেল (৩০,০০০ মেট্রিক টন) মোগ্যাস (অকটেন) ৯৫ আরওএন (সব ক্ষেত্রে +১০%) আমদানির দরপ্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত কমিটি। এজন্য মোট ব্যয় হবে ৫০০০ কোটি ৪০ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

তিনি বলেন, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ৫ বছর মেয়াদে মোট ৩৫ লাখ ডিজিটাল স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স সরবরাহের নিমিত্ত নতুন ভেন্ডর প্রতিষ্ঠান নির্বাচনের উদ্দেশ্যে বিআরটিএ কর্তৃক আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র আহবান করা হলে ৩৭টি দরপত্র বিক্রয় হলেও ৩টি দরপত্র দাখিল হয়। এর মধ্য থেকে টিইসি কর্তৃক মূল্যায়িত ও সুপারিশকৃত একমাত্র রেসপনসিভ সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠান ফ্রান্সভিত্তিক সেলফ স্মার্টকার্ডস অ্যান্ড সলিউশনস এর কাছ থেকে ডিজিটাল স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স ১২৬ কোটি ৭১ লাখ ৯৫ হাজার ৮৫৭ টাকায় সরবরাহের জন্য চেয়ারম্যান, বিআরটিএ কর্তৃক সিসিইএর অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করে। কিন্তু, দরপত্র দাখিলকারী অন্য একটি প্রতিষ্ঠান মাদ্রাজ সিকিউরিটি প্রিন্টার্স প্রাইভেট লিমিটেড কর্তৃক অভিযোগ করলে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা থাকায় টিইসি এবং চেয়ারম্যান, বিআরটিএর  সুপারিশে দরপত্রটি বাতিল করে পুনদরপত্র আহবানের লক্ষ্যে সিসিজিপির অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হলে কমিটি সে প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*