বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার উদ্যোগে শেখ রাসেলের জন্মদিন পালিত।

বিডিনিউজ প্রতিদিন: বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার উদ্যোগে আজ সকালে লেক সার্কাস উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, কলাবাগান, ঢাকায় (স্কয়ার হাসপাতাল সংলগ্ন, পশ্চিম পান্থপথ) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিবের কনিষ্ঠ সন্তান এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ¯েœহের ছোটভাই শহীদ শেখ রাসেল এর ৫৬তম শুভ জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার সভাপতি শিরিন আকতার মঞ্জুর সভাপতিত্বে ও মুখপাত্র মোঃ মনিরুজ্জামান জুয়েল এর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন বলেন, শহীদ শেখ রাসেল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর কনিষ্ঠ সন্তান। বঙ্গবন্ধু একজন দার্শনিকের নাম অনুসারে আদর করে তার নাম রাখেন শেখ রাসেল। শেখ রাসেল ছোট বেলা থেকেই বিভিন্ন গুণের প্রতিভা তার মধ্যে ফুটে ওঠে। তিনি বঙ্গবন্ধুর মতোই একজন জনদরদী মানুষ ছিলেন। বড় হলে একজন সুনাগরিক হিসেবে দেশ গঠনে তিনি অবদান রাখতে পারতেন। শিশু রাসেল হত্যা মানব সভ্যতার ইতিহাসে ঘৃণ অপরাধ। বঙ্গবন্ধুর সাথে ১৫ই আগস্ট কালরাত্রে নিষ্পাপ শিশু রাসেলকে ঘাতকরা নির্মমভাবে হত্যা করে। শিশু রাসেল বাঁচতে চেয়েছিল, মায়ের কাছে যেতে আকুতি-মিনতী করেছিল। কিন্তু হায়নার দল সেদিন শিশু রাসেলের আর্তনাদ কানে শুনেনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. প্রিয়ব্রত পাল বলেন, দেশে আর যেন শিশু হত্যা ও নির্যাতন সংঘঠিত না হয়। প্রতিটি শিশু যাতে উন্নত জীবন পায়, শিক্ষা পায়, চিকিৎসা পায় এবং উন্নত জীবনের অধিকারী হয়, সেই লক্ষ্যে বর্তমান শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার কাজ করে যাচ্ছে। তিনি শিশু শেখ রাসেল হত্যার তীব্র নিন্দা জানান এবং এই ধরণের ঘৃণ অপরাধীদের দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের রায় কার্যকর করার দাবি জানান। সভাপতির বক্তব্যে শিরিন আকতার মঞ্জু বলেন, শিশুরাই জাতির ভবিষ্যৎ। তাই তাদেরকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। শিশুদের অবহেলা নয়, তাদের আদর-যতœ দিয়ে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে আধুনিক নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। ঘাতকরা শেখ রাসেলকে হত্যা করে তার অবদান নৎসাত করতে চেয়েছিল। কিন্তু বাস্তব সত্য এই যে, আজ সারাদেশে শেখ রাসেলের জন্মদিন উৎসব মুখর পরিবেশে পালিত হচ্ছে এবং লক্ষ লক্ষ শিশু শেখ রাসেলের আদর্শকে স্মরণ করছে।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, লেক সার্কাস উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোস্তফা কামাল, কলাবাগান থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান, বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন ও আনন্দ কুমার সেন, সাংগঠনিক সম্পাদক সুজন মজুমদার, রাষ্ট্রীয় স্বর্ণ পদকপ্রাপ্ত পদকপ্রাপ্ত ক্রীড়াবিদ কাজল দত্ত, দিনাজপুর জেলা সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর-রশিদ রাজা প্রমুখ। অত্র বিদ্যালয়ের ছাত্রী ইসরাত জাহান পবিত্র কোরআন তেলোয়াত ও শিক্ষক কাওছার আলী দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন। পরে কেক কেটে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*