কোরিয়ান ল্যাব-মেইটদের গল্প

মো. কামরুজ্জামান মিলন, 

আজ অনেকদিন পর জিনার সাথে দেখা, জিনা মানে আমার সাবেক ল্যাব-মেইট হান্দুং-এর এক্স গার্ল ফ্রেন্ড। আমার পরিচিত কোরিয়ান মেয়েদের মধ্যে একমাত্র মাত্র জিনাই টুক টাক ইংরেজি বলতে পারত। বেচারি ইংরেজি শেখার জন্য নিউজিল্যন্ড ছিল একবছর। এক সাথে আড্ডা মেরে অনেক সময় কাটিয়েছি। আমার ল্যাবটা তখন ছিল তারুণ্যে ভরপুর। সবাই আন্ডার গ্রেডের স্টুডেন্ট ছিল। আমিই একমাত্র Research student।কোন Research student-ই আমার ল্যাবে আসেনা বা আসলেও থাকেনা। আমার ল্যাবের কাজ computer programming বেইসড, নতুন করে programming লাঙ্গুয়েজ শেখার দুঃসাহস কেউ দেখায়না। যারাওবা এসেছিল মাঝপথে সবাই ভাগছে। যাইহোক সেটা অন্য আলাপ আর একদিন করা যাবে। ওদের সাথে আমি একাকার হয়ে উঠেছিলাম। মনে হচ্ছিল আমি আবার বিশ্ববিদ্যালয় জীবনেই ফিরে গেছি। ওদের ভাঙ্গা ভাঙ্গা ইংরেজি কথা বলা আমি খুবেই উপভোগ করতাম। আসলে বয়স আর ভাষার ব্যবধান কোন দূরত্বই তৈরি করতে পারেনা। মনটাই যেখানে আসল।

সবচেয়ে কাছের যে ছেলেটা ছিল ওর নাম সকচুন। সকচুন একদমেই ইংরেজি জানতোনা। কিন্তু ওই আমাকে সবচেয়ে বেশি টেক কেয়ার করতো। সকচুন একদিন এসে বলল তার খুবেই মন খারপ। অনেক কষ্ট করে ইশারা-ইঙ্গিতে বুঝানোর চেষ্টা করল’ তার ‘ব্রেক আপ’ হয়ে গেছে, তাই মন খারাপ । ওকে অনেকটাই আপ-সেট দেখাচ্ছে। আমি মনে মনে বললাম ‘ব্রেক আপ’ –তো তোদের দেশে মুড়ি- মুড়কির মতো , এত আপ-সেট হওয়ার কি আছে।দেখলাম বেচারার আসলেই মন খারাপ, “মেডিটেশন”- এর বই পড়ছে।সকচুনকে কিছুটা সময় দিলাম, আর এতেকরেই সে আমার অনেকটাই আপন হয়ে উঠলো। মিঞ্জি নামের মেয়েটা ছিল অত্যন্ত রাফ এন্ড টাফ। অনেকটা স্ট্রেইট ফরোয়ার্ড। কোরিয়ান মেয়েরা Alcoholic হলেও খুব কম সংখ্যক মেয়েদেরই সিগারেটের নেশা রয়েছে। কিন্তু মিঞ্জির মারাত্মক সিগারেটের আসক্তি ছিল । মিঞ্জির কাজ ছিল প্রতিদিন আমাকে ২ টা করে কোরিয়ান ওয়ার্ড শেখানো বিনিময়ে আমি ওকে ইংরেজি শেখাতাম।

একদিন দেখলাম মিঞ্জির রিলেশনশিপের ১০০০ দিন পূর্তি উপলক্ষে ফেবুতে স্ট্যাটাস দিইয়েছে। আমি ওকে যথারীতি উইশ করে বিখ্যাত কয়েকটা লাইন লিখে দিলাম ”Love is not about how many days, months, or years you’ve been together. Love is about how much you love each other every day” মিঞ্জি একদিন এসে বলল, ‘জামান ব্রেক আপ করে দিয়ে এসেছি। তুমিই ঠিক। আসলেই ভালবাসা বিহীন রিলেশনশিপ অযথা টেনে লম্বা করার কোন মানে হয়না“ । সেদিন মিঞ্জির ফেবু দেখলাম নতুন একটা ছেলের সাথে ছবি । আগের মেমোরি সব টাইম লাইন থেকে মুছে দিয়েছে। আসলে এটা ওদের দেশের সমাজ ব্যবস্থা ওদের এভাবেই তৈরি করেছে। আমাদের দেশে ব্রেক-আপ হওয়া ছেলে-মেয়েদের আমরা মেনে নিতে এখনো অভ্যস্থ নই। যেন ব্রেক-আপ একটা মহাপাপ। চরিত্রহীন বলতেও বাধা নেই। একটা ব্রেক-আপ বা ডিভোর্সের পর আমরা ব্যস্ত হয়ে পড়ি কার কতটুকু দোষ ছিল এটা খোঁজার কাজে। সম্প্রতি তাহসান মিথিলার ডিভোর্সের পর সোশ্যাল মিডিয়াতে দেখলাম রি… রি… পরে গেছে।

ভালবাসা না থাকলেও জোর করেই দর্শকের দিকে তাকিয়ে একসাথে থাকতে হবে। কি অদ্ভুত আমাদের চিন্তা। যাইহোক ওই যে জিনাকে রাস্তায় দাড় করিয়ে এসেছি। ওর কথা বলি। ল্যাবের পাশের টেন্টে বশে আছি। হঠাত দেখলাম গাড়ি থেকে মাথা বের করে কে যেন আমার নাম ধরে ডাকছে । কাছে যেতেই দেখি জিনা। অনেকটা মুখ লুকিয়েই বলল ‘ Zaman, don’t look at me. আমি বলাম “But why???”” পরে সে আমাকে যেটা বুঝানোর চেস্টা করল যার মানে হচ্ছে ‘সে আজ মেকাপ না নিয়েই বের হয়েছে , তার ধারনা তাকে খুবেই পচা দেখাচ্ছে। আমি তাকে আশ্বস্ত করে বললাম “মেকাপ ছাড়াই তোমাকে অনেক সুন্দর দেখাচ্ছে, আর তোমারা মেয়েরা জানোইনা কিভাবে তোমাদের সুন্দর দেখায়”। এখন সে অনেকটা খুশি। প্রসঙ্গ ক্রমে একটু বলে রাখি, আমার ধারনা পৃথিবীতে যত পরিমান কস্মেটিক্স উৎপাদন হয়, তার অর্ধেকেই কোরিয়ান মেয়েরা ব্যবহার করে। সৌন্দর্যের ক্ষেত্রে কোরিয়ান নারীদের খ্যাতি বিশ্বজোড়া। ওরা প্রচুর পরিমাণে স্কিনকেয়ার প্রডাক্ট ব্যবহার করেন এবং বয়স বিশের কোঠায় যাবার পর পরই তারা এন্টি-এজিং ক্রিম এবং সিরাম ব্যবহার করতে থাকেন। ফলাফল? তারুণ্য এবং নিখুঁত ত্বক। যাইহোক জিনার সাথে অনেক পুরাতন দিনের স্মৃতি চারণ করলাম। ব্রেক-আপ হওয়ার পরও সে আর নতুন করে কোন রিলেশন শিপে জড়ায়নি। এখনো সে হান্দুংকেই ভালোবাসে……………জিনার ধারনা অন্য কোন হ্যন্ডসাম পুরুষকে সে কখনোই হান্দুং- এর মতোকরে ভালবাসতে পারবেনা।। আমি ওকে বললাম ‘প্রকৃত ভালোবাসা কখনো হারায়না, কোননা কোন ভাবে থেকেই যায়’ ।

গ্রাজুয়েট হওয়ার পর সবাই ল্যাব ছেঁড়ে চাকরির সন্ধানে বেড়িয়ে পরেছে। ল্যাবে আবার নতুন স্টুডেন্ট এসেছে। আমারও ব্যস্ততা বেড়েছে কিন্তু আগেরমতো সম্পর্ক হয়ে উঠেনি। মাঝে মাঝে ওরা message পাঠায় ‘ miss you bro……..’ আমিও উত্তর দেই “ miss you too……………….’’

 

লেখকঃ মো. কামরুজ্জামান মিলন: পিএইচডি ফেলো, গিয়নংসান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, সাউথ কোরিয়া।

ইমেইল: <milonbrri@gmail.com>

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*