গণহত্যা দিবসের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দাবি সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের

Spread the love
  •  
  •  
  •   
  •   
  •  
গণহত্যা দিবসের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দাবি সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের

পচিশ মার্চের গণহত্যা দিবসের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দাবি করেছেন সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম চট্টগ্রাম নগর, উত্তর ও দক্ষিণের নেতারা।

একাত্তরের ২৫ মার্চ ভায়াল কালো রাতে সংগঠিত জাতীয় গণহত্যা দিবস পালন উপলক্ষে চট্টগ্রাম জেলা ও মহানগর সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের উদ্যোগে শনিবার বিকেল ৫ টায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে ‘২৫ মার্চকে আন্তর্জাাতিক গণহত্যা’ দিবসের স্বীকৃতি প্রদানের দাবিতে গণসমাবেশ ও সন্ধ্যায় প্রদীপ প্রজ্জলন কর্মসূচী পালিত হয়েছে।

সংগঠনের জেলা সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আলম মন্টুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম সিদ্দিকীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জেলা কমান্ডার মো: সাহাব উদ্দিন, মহানগর কমান্ডার মোজাফফর আহম্মদ, চট্টগ্রাম পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, সিইউজের যুগ্ম সম্পাদক সবুর শুভ, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের অর্থ সম্পাদক দেব দুলাল ভৌমিক। প্রধান বক্তা ছিলেন সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের বিভাগীয় সদস্য সচিব বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার।

বক্তব্য রাখেন সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের মহানগর সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ডা. সরফরাজ খান চৌধুরী বাবুল, সাধারণ সম্পাদক এড. বি.কে বিশ্বাস বিপ্লব, সহসভাপতি হাজী আবু বক্কর সিদ্দিক, মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র বিশ্বাস, মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহম্মদ, আলহাজ্ব ফোরকান উদ্দিন আহমেদ, ন্যাপ নেতা মিটুল দাশগুপ্ত, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী এড. বাসন্তী প্রভা পালিত, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কমান্ডের কেন্দ্রীয় সদস্য সরওয়ার আলম মনি, সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা গৌরি শংকর চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা খায়ের আহম্মদ, সেলিম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহেদ মুরাদ শাকু, আব্দুল মালেক খান, প্রচার সম্পাদক জসিম উদ্দিন, ইঞ্জিনিয়ার পলাশ বড়ুয়া, দপ্তর সম্পাদক মনোয়ার জাহান মনি, নুরুল হুদা চৌধুরী, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা এডভোকেট সাইফুন্নাহার খুশি, কোষাধ্যক্ষ হাজী সেলিমুর রহমান, আজম উদ্দিন মাহমুদ, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মুক্তিযোদ্ধা বাদশা মিয়া, লেয়াকত হোসেন, সাইফুল আলম বাবু, এড. ইফতেখার উদ্দিন রাসেল, শফিকুর রহমান, পংকজ রায়, নাছির উদ্দিন রিয়াজ, আরিফ মঈনুদ্দিন, মঈনুল আলম খান, কামাল উদ্দিন, দীপন দাশ, মোস্তাফিজুর রহমান বিপ্লব, ইঞ্জিনিয়ার রুহুল আমীন, এড. ফাতেমা বেগম, ইঞ্জিনিয়ার সনাতন চক্রবর্তী বিজয়, এম.এইচ মানিক, সাদ্দাম হোসেন, রাজীব চন্দ, মাহমুদুল করিম, নবী হোসেন সালাউদ্দিন, ইঞ্জিনিয়ার এয়াকুব মুন্না, নাছির আলী পান্না, ইমাম হাসান, মোজাম্মেল হক মানিক, এনায়েত উল­াহ, শাহেদুল ইসলাম সুজন, শরীফ নেওয়াজ, জবরুত উল্লাহ জয়, জসিম উদ্দিন অভি, তৌসির আনোয়ার, মোহাম্মদ সিরাজ, মোরশেদ আলম প্রমূখ।

সভায় বক্তারা বলেন, একাত্তরের পঁচিশ মার্চের ভয়াল কালো রাতে পাকিস্তানি সেনা বাহিনী নিরস্ত্র বাঙালিদের উপর যে নির্মম হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে তা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাসের অল্প সময়ে এত জীবন পৃথিবীর কোন জাতিকে দিতে হয়নি। এ হত্যাযজ্ঞের এদেশীয় দোসর-রাজাকার আলবদর বাহিনীর মাতৃসংগঠন জামায়াত ইসলাম। তাই যুদ্ধাপরাধী সংগঠন হিসেবে জামায়াতের বিচার ও নিষিদ্ধ করা আজ সময়ের দাবি। সমাবেশ শেষে মহান মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লক্ষ শহীদের অমর স্মৃতি প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রদীপ শিখা প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে অন্ধকারের কীট অপশক্তির বিরুদ্ধে চেতনার আলো জ্বালানোর শপথ নেয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*